1. admin@dailydeshrupyan.com : Dainik Amor Bangla :
বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:৪৩ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
যে কারণে ওয়ার্ল্ড র‌্যাকিংয়ে স্থান পাচ্ছে না দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো জাতীয় পতাকার অবমাননা রুখবে কাহারা ! ভোলায় হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) কে নিয়ে কটুক্তির প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ । ইভ্যালির সিইও রাসেলের বাসায় র‌্যাবের অভিযান অর্থ আত্মসাতের মামলা ই-ভ্যালির সিইও রাসেল ও চেয়ারম্যান শামীমা গ্রেফতার ভ্যাকসিন দ্বিতীয় ডোজের আওতায় ১ কোটি ৪২ লাখ মানুষ ১২ বছর ও তার বেশি বয়সী শিক্ষার্থীদের টিকা দেওয়া হবে: প্রধানমন্ত্রী ৫ অক্টোবর থেকে সীমিত পরিসরে ঢাবির হল খুলে দেওয়া হবে কেয়া গ্রুপের মালিক ও পরিবারের বিরুদ্ধে দুদকের ৫ মামলা ভোলা বোরহানউদ্দিনে আনসার ও ভিডিপি বাহিনীর মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত ।

সিনহা হত্যা মামলা: মিডিয়া ট্রায়াল থেকে সতর্ক থাকতে আদালতের নির্দেশ

মোঃ হাসিবুর রহমান হাসিব
  • প্রকাশিত: রবিবার, ৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ৪০ বার পড়া হয়েছে

‘সুষ্ঠু ও ন্যায়বিচারের স্বার্থে আদালত চান না এই মামলার বিষয়গুলো মিডিয়ায় আসুক’

সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যা মামলার দ্বিতীয় দফা সাক্ষ্যগ্রহণে প্রথমদিনে একজনের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়েছে। এ সময় মিডিয়া ট্রয়াল থেকে সতর্ক থাকতে উভয় পক্ষের আইনজীবীদের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

রবিবার (৫ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ১০টা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টা পর্যন্ত কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাইলের আদালতে সাক্ষ্যগ্রহণ চলে। দিনব্যাপী আদালতে মামলার ৩ নম্বর সাক্ষী মোহাম্মদ আলীর সাক্ষ্যগ্রহণ ও জেরা অনুষ্ঠিত হয়।

বিচারকক্ষ থেকে বেরিয়ে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ও কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট ফরিদুল আলম বলেন, “রবিবার সারাদিন মামলার ৩ নম্বর সাক্ষী মোহাম্মদ আলীর সাক্ষ্য নিয়েছেন আদালত। আদালতের সুস্পষ্ট নির্দেশনা রয়েছে ওই মামলা নিয়ে আদালতের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা না বলতে। যাতে কোনো মিডিয়া ট্রায়াল না হয় সে বিষয়ে সতর্ক করে দিয়েছেন আদালত।”

আসামিপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট রানা দাশগুপ্ত বলেন, “মামলার তৃতীয় সাক্ষী মোহাম্মদ আলীকে জেরার সময় তিনি যে কথাগুলো বলেছেন তা অস্পষ্ট এবং এতে গরমিল রয়েছে। বিষয়টি আমরা আদালতে তুলে ধরার চেষ্টা করেছি।”

অ্যাডভোকেট রানা দাশ গুপ্ত আরও বলেন, “সুষ্ঠু ও ন্যায়বিচারের স্বার্থে আদালত চান না এই মামলার বিষয়গুলো মিডিয়ায় আসুক। সুতরাং এ ব্যাপারে উভয়পক্ষের আইনজীবীদেরকে সতর্ক করে দিয়েছেন আদালত।”

এর আগে গত ২৩ থেকে ২৫ আগস্ট টানা তিনদিন মামলার ১ নম্বর সাক্ষী ও বাদী শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস ও ২ নম্বর সাক্ষী সাহেদুল ইসলাম সিফাতের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ করেন আদালত।

এদিন সকাল থেকে আদালত প্রাঙ্গণে পুলিশের কড়া নিরাপত্তা জোরদার করা হয়। সকালে সাড়ে ৯টার দিকে পুলিশের বরখাস্ত ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপসহ আসামিদের আদালতে হাজির করা হয়েছে।

গত বছর ৩১ জুলাই রাতে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের টেকনাফ উপজেলার বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর চেকপোস্টে পুলিশের গুলিতে নিহত হন সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান।

এ ঘটনায় সিনহার বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস বাদী হয়ে টেকনাফ থানার সাবেক ওসি প্রদীপ কুমার দাশ ও বাহারছড়া তদন্তকেন্দ্রের সাবেক ইনচার্জ পরিদর্শক লিয়াকত আলীসহ ৯ পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে মামলা করেন। মামলায় প্রধান আসামি করা হয় লিয়াকত আলীকে।

আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে র‌্যাবকে তদন্তের দায়িত্ব দেন। এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে টেকনাফ থানায় একটি এবং রামু থানায় আরেকটি মামলা করে। এরপর মেজর সিনহা নিহতের ছয় দিন পর লিয়াকত আলী ও ওসি প্রদীপসহ সাত পুলিশ সদস্য আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। পরে ঘটনায় সংশ্লিষ্টতা পাওয়ার অভিযোগে টেকনাফ থানায় পুলিশের করা মামলার তিন সাক্ষী এবং শামলাপুর চেকপোস্টে ঘটনার সময় দায়িত্বরত আমর্ড পুলিশ ব্যাটালিয়ানের (এপিবিএন) তিন সদস্যকে গ্রেপ্তার করা হয়। এরপর টেকনাফ থানার সাবেক কনস্টেবল রুবেল শর্মাকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব।

গত ২৪ জুন মামলার অন্য পলাতক আসামি টেকনাফ থানার সাবেক এএসআই সাগর দেব আদালতে আত্মসমর্পণ করেন।

আসামিদের মধ্যে ওসি প্রদীপ ও কনস্টেবল রুবেল শর্মা ছাড়া অন্য ১২ জন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। তদন্ত কাজ শেষে গত বছর ১৩ ডিসেম্বর মামলার তদন্ত কর্মকর্তা র‌্যাব ১৫-এর তৎকালীন সহকারী পুলিশ সুপার মো. খাইরুল ইসলাম ১৫ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

প্রযুক্তি সহায়তায় www.dailydeshrupyan.com